আজ ১১ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাবা দিবস

ভরসা ও ছায়ার নাম বাবা। পরম নির্ভরতার প্রতীক। আজ রোববার বিশ্ব বাবা দিবস। প্রতিবছর জুন মাসের তৃতীয় রোববার এই দিবসটি পালন করা হয়। ২০২০ সালে রোববার হিসেবে ২১ জুন পালিত হল দিবসটি। সারা বিশ্বের সন্তানেরা পালন করেন এই দিবসটি। পিতার প্রতি সন্তানের সম্মান, শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা প্রকাশের জন্য দিনটি বিশেষভাবে উৎসর্গ করা হয়ে থাকে। সন্তানরা তাদের প্রিয় জন্মদাতার জন্য নানা উপহার কিনবে, দিবে।

যাদের বাবা বেঁচে নেই, তারা হয়তো আকাশে তাকিয়ে অলক্ষ্যে বাবার স্মৃতি হাতড়িয়েছেন। ইতিহাস থেকে জানা যায়, বিংশ শতাব্দীর প্রথমদিক থেকে বাবা দিবস পালন শুরু হয়। আসলে মায়েদের পাশাপাশি বাবারাও যে তাদের সন্তানের প্রতি দায়িত্বশীল- এটা বোঝানোর জন্যই এই দিবসটি পালন করা হয়ে থাকে। পৃথিবীর সব বাবার প্রতি শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা প্রকাশের ইচ্ছা থেকে যার শুরু। বাবা ছোট্ট একটি শব্দ হলেও এর ব্যাপকতা বিশাল। বাবার জীবনটা আসলে রহস্যময়।

কতশত না বলা সংগ্রাম, কত নীরব পরিশ্রম, কতটা আত্মত্যাগের গল্প লেখা থাকে ‘বাবা’ শব্দটির পিছনে, তা জানেন বাবারাই কিন্তু জানতে দেন না তাদের সন্তানদের। সন্তানের সুখেই বাবাদের সুখ আকাশ ছুঁতে চায়, কিন্তু তার বিনিময়ে যে কত রক্ত ক্ষয়, সেটা লেখা থাকে বাবাদের গোপন শ্রমে আর ক্ষয়। যাদের বাবা নেই তারা চোখ বন্ধ করলেই একটু অনুভব করতে পারবে বাবার গুরুত্ব কতটুকু। যাদের বাবা বেঁচে আছে অনেকেই হয়তো বাবার গুরুত্বটা বোঝেনা।

বাবা এক বটবৃক্ষের নেয় যার ছায়া তলে আমরা বেড়ে উঠেছি। যার রাজত্বে ছেলেরা থাকে রাজকুমার, মেয়েরা থাকে রাজকন্যা হিসাবে। যিনি হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে শুধুমাত্র ছেলেমেয়েদের সুখের জন্য। অনেক সময় খবরের কাগজ খুললেই মাঝেমাঝে দেখা যায় ছেলে বাবাকে ফেলে চলে গেছে। বাবা কখনো ছেলেকে রেখে চলে যায় না। আমরা হয়তো আজ বাবা দিবসে বাবাকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। যে সকল বাবারা বৃদ্ধাশ্রমে রয়েছেন তাদের খবর কে রাখে।

যারা বৃদ্ধাশ্রমে নিজের বাবাকে রেখেছেন একবার কল্পনা করে দেখুন, আপনিও বাবা হবেন। জীবনটাকে ক্ষয় করেছে শুধু আপনার সুখের জন্যই। গিয়ে দেখুন বৃদ্ধাশ্রমের থেকেও আপনার প্রতি তার কোন বিন্দু পরিমাণ অভিযোগ নেই, আপনার সুখী যেন তার সুখ। বাবার প্রতিটা পার্থনা জুড়েই আমরা। যার কারণে আমরা এই পৃথিবীতে এসেছি, একটা দিবস দিয়ে কি তার মূল্য দেওয়া যাবে, তার মূল্য কি এতটাই কম! এই দিবস টি মাত্র উসিলা, নিদাঘ সূর্যের তলে সন্তানের অমল- শীতল ছায়া তিনিই বাবা। যার বর্ণনা অসীম, বাবা দিবস কিংবা মা দিবস শুধু একদিনের ভালোবাসার জন্য নয়।

শত-সহস্ত্র বাবা দিবস এলেও বাবাদের সরন ফুরাবেনা। পিতা ও পুত্রের স্নেহের চক্র কখনো যেন ফুরিয়ে না যায়। বাবাদের অবদান আমরা যখন বাবা হব তখন বুঝবো। এই বাবা দিবস থেকে আমরা শিক্ষা গ্রহণ করি, বাবার খেয়াল খুশি মূল্য দেই। প্রতিটা বাবাই বেঁচে থাকুক প্রতিটা সন্তানের হৃদয়ে। প্রতিটা ক্ষণে প্রতিটা মুহূর্তে আমরা যেন বাবার পাশে থাকতে পারি।

 

লেখক- ওমর ফারুক ভুইয়া।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

Comments are closed.

     এই ধরনের আরো সংবাদ